Connect with us

আন্তর্জাতিক

রোনালদোকে ছাড়িয়ে রেকর্ডবারের মত ফিফার বর্ষসেরা মেসি

মেসি পেয়েছেন মোট ৪৬ পয়েন্ট, দ্বিতীয় হয়েছেন ৩৮ পয়েন্ট পাওয়া ভ্যান ডাইক।

প্রকাশিত

তারিখ

রোনালদোকে ছাড়িয়ে রেকর্ডবারের মত ফিফার বর্ষসেরা মেসি
গোটা মৌসুমে ৫১ ম্যাচ খেলে ৫০ গোল করেছেন মেসি। ছবিঃ ডেনভার পোস্ট

ষষ্ঠবারের মতো ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হয়েছেন আর্জেন্টিনা ও বার্সেলোনা তারকা লিওনেল মেসি। বিশ্বের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচনে গত মৌসুমের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলেন তিনজন।

বিশ্বের সব জাতীয় ফুটবল দলের কোচ, অধিনায়ক, নির্বাচিত সাংবাদিক ও সমর্থকদের ভোটে ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ও ভার্জিল ভ্যান ডাইককে পেছনে ফেলে ষষ্ঠবারের মতো বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হলেন ৩২ বছর বয়সী এ তারকা ফুটবলার।

সব শেষ পুরস্কারটি জিতেছিলেন ২০১৫ সালে। চার বছর অপেক্ষার পর আবার জিতলেন, ফিরিয়ে আনলেন সে পুরনো প্রতিযোগিতা, ছাড়িয়ে গেলেন রোনালদোকেও।

ফিফার বর্ষসেরা পুরস্কার দ্য বেস্ট নামকরণের পর থেকেই আর সেরার পুরস্কার জেতা হয়নি মেসির। কিছুদিন আগে ভার্জিল ভ্যান ডাইক উয়েফার বর্ষসেরা ফুটবলার নির্বাচিত হওয়ার পর ফিফার বর্ষসেরা হওয়ার দৌড়ে তিনিও এগিয়ে ছিলেন কিছুটা।

গত বছর ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা মৌসুম কাটিয়েছেন মেসি। যেনো ১০ বছর আগের মেসি মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছিলেন । গেল মৌসুমে ইউরোপের সর্বোচ্চ গোলদাতা ছিলেন মেসি। ছিলেন চ্যাম্পিয়নস লিগের সর্বোচ্চ গোলদাতাও।

গোটা মৌসুমে ৫১ ম্যাচ খেলে ৫০ গোল করেছেন, সঙ্গে আছে ২২টি অ্যাসিস্টও। অনেক ম্যাচে বার্সেলোনাকে একাই বিপদের হাত থেকে উদ্ধার করেছেন। জিতেছেন লা লিগা ও ইউরোপের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরষ্কার।

মেসির অতিমানবীয় পারফরম্যান্সের সুফল শুধু লিগেই নিতে পেরেছে বার্সা। চ্যাম্পিয়নস লিগ আর কোপা দেল রে জেতা হয়নি। তবে এটিই যথেষ্ট ছিল ক্লাব ও আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে দলীয়ভাবে ব্যর্থ হবার পরেও।

মেসি পেয়েছেন মোট ৪৬ পয়েন্ট, দ্বিতীয় হয়েছেন ৩৮ পয়েন্ট পাওয়া ভ্যান ডাইক। ভ্যান ডাইকের চেয়ে দুই পয়েন্ট কম নিয়ে তৃতীয় হয়েছেন রোনালদো। ২০০৯, ২০১০, ২০১১, ২০১২ ও ২০১৫ সালেও বর্ষসেরা হয়েছিলেন মেসি।

তখন অবশ্য ব্যালন ডি’অর ও ফিফা একসঙ্গে মিলেই ঘোষণা করত বর্ষসেরার নাম। ২০১৬ সাল থেকে ফিফার দ্য বেস্ট নামকরণের পর প্রথম দুইবার বর্ষসেরা ফুটবলার হন রোনালদো।

২০১৮ সালের ১৬ জুলাই থেকে ২০১৯ সালের ১৯ জুলাই পর্যন্ত—এক বছরে ইউরোপে খেলা খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স বিবেচনা করে দেওয়া হয়েছে সম্মানজনক এই পুরস্কার। কোচ, অধিনায়ক, সাংবাদিক ও সমর্থকদের ভোটকে সমান ২৫ শতাংশ ধরে এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

বর্ষসেরা কোচ হয়েছেন লিভারপুলের ইউর্গেন ক্লপ। লিভারপুলের চ্যাম্পিয়নস লিগ জয়ী ও ব্রাজিলের হয়ে কোপা আমেরিকা জেতা গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকার পেয়েছেন বর্ষসেরা গোলরক্ষকের পুরস্কার।

মেয়েদের সেরা ফুটবলার হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রকে টানা দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক মেগান রাপিনো। মেয়েদের সেরা গোলরক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন নেদারল্যান্ডসের সারা ভিনেন্দাল।

ফেহেরবারের দানি সোরির গোলটি নির্বাচিত হয়েছে পুস্কাস অ্যাওয়ার্ডের জন্য । হাঙ্গেরির লিগে ফেরেঙ্কভারোসের বিপক্ষে ওভারহেড কিকে গোলটি করেছিলেন তিনি। ফেয়ার প্লে পুরস্কার জিতেছেন লিডসের মার্সেলো বিয়েলসা।

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক