Connect with us

আন্তর্জাতিক

টাইগারদের ফর্মে ফেরা সময়ের ব্যাপারঃ সাকিব

ছন্দে ফিরতে  ভারতের বিরুদ্ধে তিন টি২০ ও দুই টেস্ট সিরিজকেই নেয়া হচ্ছে গুরুত্ব সহকারে। এখন অপেক্ষা ঘুরে দাঁড়ানোর।

প্রকাশিত

তারিখ

টাইগারদের ফর্মে ফেরা সময়ের ব্যাপারঃ সাকিব
টাইগারদের ঘুরে দাঁড়ানোর ব্যাপারে আশাবাদী সাকিব। ছবিঃ বাসস

তরুণদের দক্ষতা উন্নয়নে বাংলাদেশের অসামান্য সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘চ্যাম্পিয়ন অব স্কিল ডেভেলপমেন্ট ফর ইয়ুথ’ পুরস্কার গ্রহণ করেছেন বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নিউইয়র্কে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ইউএন প্লাজার ইউনিসেফ ভবনের ল্যাবুইসে হলে জাতিসংঘ শিশু তহবিল (ইউনিসেফ) প্রদত্ত এই পুরস্কার গ্রহণ করেন দেশনেত্রী শেখ হাসিনা। এ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন বাংলাদেশ সেরা অলরাউন্ডার, টেস্ট ও টি২০ অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও।

অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনার আহ্বানে বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে কথা বলেন সাকিব। বলতে গিয়ে, ‘দলের ছন্দে ফিরতে খুব বেশি সময় লাগবে না’ এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ওয়ানডে বিশ্বকাপের শেষ মুহূর্ত থেকে ছন্দ হারিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ দল। এমনই অবস্থা হয়েছে বিশ্বকাপের পর শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ৩-০ হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর আফগানিস্তানের কাছে একমাত্র টেস্ট হেরেছে। তাও আবার দেশের মাটিতে।

টেস্টের পর ত্রিদেশীয় টি২০ সিরিজে আফগানদের সঙ্গে শিরোপা ভাগাভাগি করে টাইগাররা যৌথ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। এ সিরিজেও আফগানিস্তানের কাছে এক ম্যাচ হেরেছে টাইগাররা।এমন অবস্থায় দল নিয়ে মহাচিন্তা শুরু হয়ে গেছে। তবে সাকিবের আশা খুব শীঘ্রই ছন্দ ফিরে পাওয়া যাবে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট নিয়ে আত্মবিশ্বাসী সাকিব বলেন,

‘আমরা সবাই জানি বাংলাদেশ ভালো দল। এ ধরনের দল মাঝে মধ্যে এক ধরনের পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে যায়। আমরা এখন এ অবস্থার মধ্যে আছি।’

সঙ্গে যোগ করেন, ‘আমার মনে হয় ছন্দে ফিরতে খুব বেশি সময় লাগবে না। আমরা অতীতে যে ধরনের ক্রিকেট খেলেছি সেটা আবারও খেলা শুরু করব।’

বাংলাদেশের সামনে কঠিন পথ। নভেম্বরে ভারতের মাটিতে ভারতের বিরুদ্ধে তিন টি টি২০ ও দুইটি টেস্ট ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। এরপর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দুই টেস্ট ও তিন টি২০’র সিরিজ আছে। শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টেস্ট, টি২০ খেলার পর আছে টি২০ বিশ্বকাপ।

২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ায় টি২০ বিশ্বকাপের পর ২০২১ সালে ভারতেও টি২০ বিশ্বকাপ রয়েছে। সামনে বাংলাদেশকে তাই টি২০ দল গঠন নিয়েই বেশি ভাবতে হচ্ছে। এ সময়ের মধ্যে যে ওয়ানডে খেলা খুব কম। সঙ্গে টেস্ট নিয়েও আছে চিন্তা। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ম্যাচগুলো খেলতে হবে।

তবে দুটি টি২০ বিশ্বকাপ সামনে। এ নিয়েই বেশি মাথাব্যথা থাকছে। সাকিব বিশ্বকাপে দেশের মুখ উজ্জ্বল করতে চান। বলেন, ‘আমাদের সামনে দুটি টি২০ বিশ্বকাপ। সবার কাছে দোয়া চাই যেন এ দুই আসরে ভালো করে আমরা দেশের মুখ উজ্জ্বল করতে পারি।’

সাকিবের মতো সবারই চাওয়া একই, দেশের মুখ উজ্জ্বল হোক। কিন্তু টি২০ বিশ্বকাপে কী সত্যিই ভালো করা সম্ভব? এর আগে যে সিরিজগুলো রয়েছে, তাতেও তো নিজেদের মেলে ধরতে হবে। তা নাহলে দল নিয়ে হতাশাই জমা থাকবে।

এবার ওয়ানডে বিশ্বকাপে দল নিয়ে অনেক আশা ছিল। সেমিফাইনালে উঠবে দল। সেই প্রত্যাশা ছিল। কিন্তু অষ্টম হয়েছে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তান বাছাইপর্ব উতরে বিশ্বকাপ খেলেছে। বাংলাদেশ সরাসরি বিশ্বকাপ খেলেছে। সরাসরি বিশ্বকাপ খেলা দলগুলোর মধ্যে সবার নিচে ছিল বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপের শেষদিকে যে ভারতের বিরুদ্ধে হার হয়েছে, সেই থেকে ওয়ানডে, টেস্ট মিলিয়ে টানা ছয়টি ম্যাচ হেরেছে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে ভারত ও পাকিস্তানের কাছে হারের পর শ্রীলঙ্কার কাছে তিন ওয়ানডে হেরেছে। এরপর দেশের মাটিতে আফগানিস্তানের কাছে টেস্ট হেরেছে।

টি২০তেও যখন আফগানিস্তানের কাছে পরাস্ত হলো বাংলাদেশ তখন মহাচিন্তা পুরো টাইগার শিবিরে।ফাইনাল ম্যাচটি বৃষ্টির জন্য হয়নি। তবে হলে আফগানরাও যে জিতত না এর কোন নিশ্চয়তা ছিল না। এসব নিয়ে না ভেবে এখন সামনের দিক নিয়েই ভাবতে চান বাংলাদেশ ক্রিকেটাররা।

ছন্দে ফিরতে  ভারতের বিরুদ্ধে তিন টি২০ ও দুই টেস্ট সিরিজকেই ভাবনায় নেয়া হচ্ছে গুরুত্ব সহকারে। এখন অপেক্ষা ঘুরে দাঁড়ানোর।

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক