Connect with us

আন্তর্জাতিক

হাফিজ-ওয়াহাবে শেষ হাসি হাসলো পাকিস্তান

প্রকাশিত

তারিখ

১৯ তম ওভারে মাত্র ৩ রান দিয়ে ইংল্যান্ডের জয়ের স্বপ্ন ভেঙ্গে দেন ওয়াহাব রিয়াজ। ছবিঃ দ্য টেলিগ্রাফ

হাফিজ-ওয়াহাব নৈপুন্যে ম্যানচেস্টারে তিন ম্যাচ টি-২০ সিরিজের টান টান উত্তেজনাকর শেষ ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে ৫ রানে হারিয়ে শেষের হাসি হেসেছে পাকিস্তান। পুরো সফরে এটিই তাদের একমাত্র জয়!

প্রথম ম্যাচটি বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হলেও দ্বিতীয় ম্যাচে ১৯৫ রানের রেকর্ড রান তাড়া করে জিতেছিল স্বাগতিকরা। গতকাল শেষ ম্যাচে জিতে ১-১ এ সিরিজ ড্র করে ইংল্যান্ড সফর শেষ করলো পাকিস্তান।

টসে জিতে আগে পাকিস্তানকে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান ইংলিশ অধিনায়ক এউইন মরগান।

মঈন আলীর করা ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে দলীয় ২ রানেই বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার ফখর জামান।

এরপর অধিনায়ক বাবর আজম ব্যাক্তিগত ২১ রান করে আউট হলে পাকিস্তানকে টেনে নেন অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজ ও অভিষিক্ত হায়দার আলী।

তৃতীয় উইকেটে দুজনে মিলে গড়েন ৬১ বলে ১০০ রানের পার্টনারশিপ!

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান হিসেবে অভিষেকে ফিফটি করেন হায়দার আলী।

ক্রিস জর্ডানের বলে বোল্ড হবার আগে খেলেন ৩৩ বলে ৫৪ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস।

এরপর আগের ম্যাচে ৩৬ বলে ৬৯ রান করা মোহাম্মদ হাফিজ শেষ পর্যন্ত উইকেটে থেকে ৫২ বলে চার বাউন্ডারি ও ছয়টি ছক্কায় অপরাজিত ৮৬ রানের ইনিংস খেলেন। যৌথভাবে এটি তার ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস।

২০ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ দাড়ায় ৪ উইকেটে ১৯০ রান।

ইংল্যান্ডের হয়ে দুটি উইকেট নেন ক্রিস জর্ডান। টম কারেন ও মঈন আলী নেন একটি করে উইকেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ১ রানেই শাহীন আফ্রিদির দুর্দান্ত ইয়র্কারে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জনি বেয়ারস্টো।

এরপর দলীয় ২৬ রানে ডেভিড মালান আউট হয়ে গেলে দলের হাল ধরেন অধিনায়ক মরগান ও টম ব্যান্টন। দুজনে মিলে গড়েন ২১ বলে ৩৯ রানের ঝড়ো পার্টনারশিপ।

কিন্তু দলীয় ৬৫ ও ৬৯ রানে মরগান ও ব্যান্টনের টানা দুটি উইকেট হারায় স্বাগতিকরা। আউট হবার আগে ৩১ বলে ৪৬ রানের ইনিংস খেলেন প্রথম ম্যাচে ৭১ রান করা টম ব্যান্টন।

তাদের বিদায়ের পর পাকিস্তানি বোলারদের উপর রীতিমতো তান্ডব চালান মঈন আলী।

১৬ তম ওভারে করা শাদাব খানের প্রথম চার বলে ৩ ছক্কা হাঁকিয়ে ২৫ বলে তুলে নেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ফিফটি।

কিন্তু ১৭০ থেকে ১৭৪ রানের মধ্যে লুইস গ্রেগরি, ক্রিস জর্ডান ও মঈন আলীর উইকেট হারালে লক্ষ্যটা কঠিন হয়ে পড়ে ইংল্যান্ডের।

শেষ দুই ওভারে ২০ রানের প্রয়োজন হলে ১৯ তম ওভারে দুর্দান্ত এক থ্রোতে জর্ডানকে সাজঘরে পাঠান ওয়াহাব রিয়াজ।

পরে তুলে নেন বিপদজনক হয়ে ওঠা মঈন আলীর উইকেটও৷ অভিজ্ঞ এই পেসারের বুদ্ধিদীপ্ত বোলিংয়ে সেই ওভারে আসে মাত্র ৩ রান!

শেষ ওভারে ১৭ রানের প্রয়োজন হলে হারিস রউফের করা প্রথম চার বলে আসে মাত্র ৫ রান। তবে পঞ্চম বলে ব্যাকফুটে গিয়ে এক্সট্রা কাভারের উপর দিয়ে বিশাল ছক্কা হাঁকান টম কারেন।

শেষ বলে দরকার ছিলো আরেকটি ছক্কার। তবে সেই সুযোগটি আর নিতে দেননি হারিস। ওয়াইড ইয়র্কারে পরাস্ত হয়ে কোনো রান নিতে পারেননি টম কারেন।

২০ ওভারের কোটা শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৮৫ রানেই শেষ হয় ইংল্যান্ডের ইনিংস। ৫ রানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পাকিস্তান।

পাকিস্তানের হয়ে দুটি করে উইকেট নেন ওয়াহাব রিয়াজ ও শাহীন শাহ আফ্রিদি। একটি করে নেন ইমাদ ওয়াসিম ও হারিস রউফ।

ম্যাচসেরা ও সিরিজ সেরা উভয় পুরষ্কারই ওঠে মোহাম্মদ হাফিজের হাতে।

ফলাফলঃ পাকিস্তান ৫ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ ও ম্যান অব দ্য সিরিজঃ মোহাম্মদ হাফিজ

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক