Connect with us

ক্রিকেট

শানাকা ঝড়ে কুমিল্লার কাছে উড়ে গেলো রংপুর

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে কুমিল্লার কাছে ১০৫ রানে হেরেছে রংপুর।

প্রকাশিত

তারিখ

শানাকা ঝড়ে কুমিল্লার কাছে উড়ে গেলো রংপুর
দাসুন শানাকা ঝড়ে ১৭৩ রানের বড় লক্ষ্য পায় কুমিল্লা।ছবিঃ ডেইলি বাংলাদেশ

শানাকা ঝড়ের পর কুমিল্লার বোলারদের কাছে বিধ্বস্ত হয়ে বঙ্গবন্ধু বিপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মাত্র ৬৮ রানে অলআউট হয়ে গিয়েছে রংপুর। ম্যাচটি হেরেছেও ১০৫ রানের বিশাল ব্যবধানে।

শানাকা ব্যাট হাতে এমন ঝড় না তুললে কুমিল্লারও এমন রান পাহাড়ে ওঠা হয় না। ম্যাচটিও হয়ত অন্যরকম হত।

কুমিল্লার দেয়া ১৭৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে রান তোলার চাপেই কিনা একদম হাঁসফাঁস করল রংপুরের ব্যাটিং। মাত্র ১৪ ওভার স্থায়ী রংপুরের ইনিংসে কোন ব্যাটসম্যানই স্বচ্ছন্দে খেলতে পারেন নি।

কুমিল্লার বোলাররাও ছিলেন নিজেদের চেনা ছন্দে। এক পাশ থেকে মুজিব-উর-রহমান চেপে ধরেছিলেন রংপুরের ব্যাটসম্যানদের, অন্যপাশে পেসাররা দ্রুত উইকেট তুলে নিয়েছেন।

মাত্র ১৫ রানেই রংপুর প্রথম উইকেট হারায়। মোহাম্মদ শেহজাদ ১৩ রান করে ফিরে যান মুজিবের বলে।

৩৩ থেকে ৩৪, এ এক রান তুলতেই নেই আরো তিন উইকেট। জহুরুল ইসলামকে ৫ রানে ফেরান আবু হায়দার।

এরপর ৫ম ওভারে পরপর দুই বলে ফজলে মাহমুদ এবং লুইস গ্রেগরিকে তুলে নেন আল-আমিন। রংপুরের রান তখন ৪ উইকেটে ৩৪।

এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে মাত্র ৬৮ রানে অল আউট হয় রংপুর। সর্বোচ্চ ১৭ রান আসে মোহাম্মদ নাইমের ব্যাট থেকে।

আল-আমিন হোসেন ৩ ওভারে মাত্র ১৪ রানের খরচায় নেন ৩ উইকেট।

১৭ ওভার শেষেও কুমিল্লা এমন রান পাহাড়ে উঠবে কেও কল্পনাতেও আনেন নি। কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের রান ছিল ১০৮, দাসুন শনাকা অপরাজিত ১৪ বলে ১৫ রানে।

২০ ওভার শেষে কুমিল্লার রান ১৭৩, শানাকা ১৫ বলে তুললেন ৬০ রান।

১৮তম ওভারে গ্রেগরির ওপর ঝড়টা শুরু করেছিলেন শনাকা। তার সেই ওভারে শনাকা মারলেন দুই ছয়, উঠলো ১৬ রান।

পরের ঝড়টা গেল মোস্তাফিজের ওপর দিয়ে। চারটি ছয় মারলেন মিড উইকেট থেকে লং-অনের মাঝ দিয়ে, এর মাঝে একটি ছয়ে তো গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডের ওপর উঠে বল হারিয়েই গেল।

ফিফটি পেয়ে গেছেন মাত্র ২৩ বলে। সে ওভারে আসলো ২৬ রান। শেষ ওভারে জুনাইদের কাছ থেকে শনাকা নিলেন আরও ২৩ রান। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত ছিলেন ৭৫ রানে।

অথচ শুরুটা ছিল সম্পূর্ণ বিপরীত। ইনিংসের প্রথম বলেই নবীর বোলে বোল্ড ইয়াসির আলী। পরের ৪ ওভারে ৪০ রান তুলে ইনিংস মেরামত করেছিলেন সৌম্য এবং রাজাপাকশে।

দ্রুত দুইজনকে ফেরত পাঠিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয় রংপুর। এক পর্যায়ে তো ৮৯ রানেই ৬ উউইকেট ছিল না কুমিল্লার।

এরপরেই শানাকা ঝড় এবং কুমিল্লার রান পাহাড়ে ওঠা।

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক