Connect with us

ক্রিকেট

টিম কম্বিনেশনের জন্য দলে নেই সোহান!

প্রকাশিত

তারিখ

ভালো খেলেও টিম কম্বিনেশনের কারণে বাদ পড়তে পারেন বলে মনে করেন সোহান। ছবিঃ বিসিবি

তাকে বলা হয়ে থাকে দেশের সেরা উইকেটরক্ষক। কিন্তু জাতীয় দলের হয়ে নিজেকে প্রমাণের জন্য খুব একটা সুযোগ মিলছেনা নুরুল হাসান হাসানের। তবে এ নিয়ে আক্ষেপ নেই খুলনার এই ক্রিকেটারের।

ইতিবাচক মানসিকতাই তাকে এগিয়ে রাখছে। টিম কম্বিনেশনের কারণে ভালো খেলেও দল থেকে বাদ পড়তে পারেন এমনটাই ধারণা তার।

গতকাল মঙ্গলবার সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় সবার সুযোগ এক রকম আসবেনা। অনেক সময় আমি ভালো খেলেও দল থেকে বাদ পড়তে পারি টিম কম্বিনেশনের কারণে। এভাবেই মাথায় সেট করেছি।’

সুযোগ পেলে নিজেকে উজাড় করে দেওয়ার ব্যপারে দৃঢ় প্রত্যয়ী সোহান আরো যোগ করেন,

‘আমার কাছে মনে হয় যদি দলের প্রেফারে এরকম কোন সুযোগ আসে আবার জাতীয় দলে খেলার, চেষ্টা করবো নিজের শতভাগ দেওয়ার।’

জাতীয় দলের হয়ে নিজেকে মেলে ধরার সুযোগ না পেলেও ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মিত পারফর্মার নুরুল হাসান। প্রায়ই দায়িত্ব চাঁপে অধিনায়কত্বেরও।

ব্যাট হাতেও রেখেছেন প্রতিভার স্বাক্ষর। পরিসংখ্যান তাই বলে।

৮৭টি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলা সোহান ব্যাট হাতে ৩৮.৮১ এভারেজে ২০ ফিফটি ও ৯ সেঞ্চুরির সাহায্যে রান করেছেন ৪৩০৯।

৯৫টি লিস্ট-এ ম্যাচে প্রায় ৩৪ এভারেজ আর ৯২.৫৬ স্ট্রাইকরেটে ২৪৭৮ রান আছে তার সংগ্রহে।

এছাড়া ৯৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে ১২৫.৯১ স্ট্রাইকরেটে রান করেছেন ১৩০২।

সর্বশেষ আসরগুলোতেও চওড়া হাসি হেসেছে তার ব্যাট। আপাতত ঘরোয়া ক্রিকেটেই মনোনিবেশে ব্যস্ত এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

‘আমি যেরকম খেলেছি, সেরকমই আছি। ঘরোয়া ক্রিকেটে নিজের সেরাটা দেওয়ার চেষ্টা করছি। হয়তো অন অ্যান্ড অফ, ৭-৮ নম্বরে খেলে যতটুকু পেরেছি চেষ্টা করেছি।’

‘আমি যখনই ঘরোয়া ক্রিকেট খেলছি আল্লাহর রহমতে পারফর্ম করছি। চেষ্টা করছি আগের চেয়েও ভালো পারফর্ম করার। এর আগে জাতীয় দলে যখন খেলেছি তখন থেকে চেষ্টা করছি নিজেকে কিভাবে আরও উন্নতি করা যায়, পরিণত করা যায়।’

সুযোগ পেলে সেরাটা দিতে মুখিয়ে আছেন নুরুল হাসান সোহান।

‘যদি সুযোগ আসে, যেখানেই খেলছি চেষ্টা করছি নিজের সেরাটা দিয়ে। জাতীয় দলেও যদি সুযোগ আসে চেষ্টা করবো নিজের সেরাটা দিতে।’

সব ফরম্যাট মিলিয়ে এখন পর্যন্ত মাত্র ১৪ ম্যাচের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার। তারমধ্যে আছে ৩ টেস্ট, ২ ওয়ানডে ও ৯ টি-টোয়েন্টি।

ঘরোয়া ক্রিকেটে উপরের দিকে ব্যাট করলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে টেইল এন্ডারদের নিয়েই ব্যাট করতে হয় তাকে।

তখন দ্রুত রান বাড়ানোর লক্ষ্যে ব্যাট চালাতে হয়। তাতে বড় স্কোরের খুব একটা মেলেনা।

‘আমি যেখানে ব্যাট করি ৬, ৭ ও ৮ নম্বরে এখানে ১০০ বা ৫০ মারার সুযোগ থাকবে না। এই পজিশন দল জেতানোর জন্য।’

‘টি-টোয়েন্টি বা ওয়ানডেতে ১০ বলে ২০ রানের একটা ইনিংস বড় অবদান রাখবে দলের জন্য। আমার কাছে এটাই মনে হয় যে পরিস্থিতি আসবে সেটার সাথে মানিয়ে নিতে হবে।’

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক