Connect with us

আন্তর্জাতিক

কোন পথে এগোচ্ছে ম্যানচেস্টার টেস্ট?

প্রকাশিত

তারিখ

শেষ দিনে ফলাফলের অপেক্ষায় ইংল্যান্ড।ছবিঃ আইসিসি

ম্যানচেস্টার টেস্টের প্রথম ইনিংসে ডম সিবলি ও বেন স্টোকসের অসাধারণ সেঞ্চুরি নৈপুন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৪৬৯ রানের বিশাল চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় ইংল্যান্ড।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ক্রিস ওকস, স্টুয়ার্ট ব্রড এবং স্যাম কারেনের বোলিং তোপে পড়ে কোনোমতে ফলোঅন এড়িয়ে মাত্র ২৮৭ রানেই গুটিয়ে যায় ক্যারিবিয়ানরা।

প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের দেয়া পাহাড়সম লক্ষ্যের দিকে ছুটতে গিয়ে ১৪ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৩২ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বৃষ্টির কারণে তৃতীয় দিনের খেলা পুরোটাই ভেসে যায়।

গতকাল ১৯ জুলাই চতুর্থ দিনে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হলেও শেষ পর্যন্ত ইংলিশ বোলারদের তান্ডব সামলাতে রীতিমতো হিমশিম খায় ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানরা।

দিনের শুরুটা ক্রেইগ ব্র‍্যাথওয়েট ও আলজারি জোসেফ দারুণভাবে সামলালেও ৮৮ বলে ৫৪ রানের পার্টনারশিপটা বড় হতে দেননি ডম বেস। অলি পোপের ক্যাচ বানিয়ে জোসেফকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান তিনি।

এরপর শাই হোপকে নিয়ে আরেকটি ফিফটি পার্টনারশিপ গড়েন ব্র‍্যাথওয়েট। এবার ৫৩ রানের পার্টনারশিপটা ভেঙে দেন স্যাম কারেন।

জস বাটলারের হাতে ক্যাচ বানিয়ে শাই হোপকে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানান এ পেসার।

এরপর শামারাহ ব্রুকসকে নিয়ে আবারো ফিফটি পার্টনারশিপ গড়েন ব্র‍্যাথওয়েট। নিজের করা বলে নিজেই ক্যাচ নিয়ে ১৩৭ বলে ৭৬ রানের দারুণ এই জুটি ভাঙ্গেন বেন স্টোকস।

দলীয় ১৯৯ রানে চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হবার আগে ১৬৫ বলে ৭৫ রানের চোখধাঁধানো এক ইনিংস খেলেন ক্রেইগ ব্র‍্যাথওয়েট।

এরপর শামারাহ ব্রুকস ও রস্টন চেজ মিলে ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেন। দুজনে মিলে গড়েন ৪৩ রানের পার্টনারশিপ।

দলীয় ২৪২ রানে স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে এলবিডব্লু হয়ে যান দারুণ খেলা ব্রুকস। তার ১৩৭ বলে খেলা ৬৮ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংসটি ওয়েস্ট ইন্ডিজ ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান।

এরপর নিজের করা টানা দুই ওভারে আরো দুটি উইকেট নিয়ে ব্রড যেনো প্রথম টেস্টে তাকে না খেলানোর ক্ষোভটা মিটিয়ে নেন।

রানের খাতা খোলার আগেই প্রথম টেস্ট জয়ের অন্যতম নায়ক জার্মেইন ব্ল্যাকউডের মিডল স্টাম্প উপড়ে ফেলেন তিনি। এরপর শেইন ডোওরিচকে এলবিডব্লুর ফাঁদে ফেলেন অভিজ্ঞ এই পেসার।

উইকেটে আসা অধিনায়ক জেসন হোল্ডারও ক্রিস ওকসের বলে রুটের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান।

শেষদিকে কেমার রোচের সাথে রস্টন চেজের ২৭ রানের পার্টনারশিপে ফলোঅন এড়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে ওকসের বলে এলবিডব্লু হবার আগে ৮৫ বলে ৫১ রানের ইনিংস খেলেন চেজ।

এরপর শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ওকসের তৃতীয় শিকার হয়ে শ্যানন গ্যাব্রিয়েল বোল্ড আউট হলে ৯৯ ওভারে মাত্র ২৮৭ রানেই থেমে যায় ক্যারিবিয়ানদের ইনিংস।

দলের শেষ পাঁচ ব্যাটসম্যানের কেউই দুই অংকের ঘরে পৌছাতে পারেননি। এরমধ্যে তিনজনই আউট হয়েছেন শূন্য রানে!

স্বাগতিক বোলারদের মধ্যে স্যাম কারেন দুটি, ক্রিস ওকস ও স্টুয়ার্ট ব্রড তিনটি করে উইকেট লাভ করেছেন।

১৮২ রানের লিড পাওয়া ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় ইনিংসে ওপেন করতে নামেন দুই হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান বেন স্টোকস ও জস বাটলার। বুঝাই যাচ্ছিলো দ্রুত রান বাড়াতেই এমন পরিকল্পনা।

তবে ইনিংসের প্রথম ওভারে কেমার রোচের করা চতুর্থ বলেই দলীয় এক রান ও ব্যাক্তিগত শূন্য রানে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরে যান বাটলার!

এরপর আবারো প্রতিপক্ষের স্টাম্পে আঘাত হানেন রোচ। তার করা ৫ম ওভারের প্রথম বলেই জ্যাক ক্রাওলিকে বোল্ড করেন তিনি।

১৭ রানে ২ উইকেট হারানো ইংল্যান্ড অবশ্য আর কোনো উইকেট না হারিয়ে ৩৭ রানে দিন শেষ করে।

অপরাজিত আছেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান বেন স্টোকস ১৬* ও অধিনায়ক জো রুট ৮*

ইতিমধ্যে ২১৯ রানের লিড পেয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড।

আজ শেষ দিনে ব্যাটিং করতে নেমে প্রথম সেশনে তারা চাইবে দ্রুত কিছু রান বাড়িয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাটিংয়ে নামাতে।

শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ড কি ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১০ উইকেট তুলে নিয়ে সিরিজে সমতায় ফিরবে, নাকি তাদের দেয়া চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে ম্যাচ ড্র বা জিতে নিবে ক্যারিবিয়ানরা? আবার বৃষ্টি ভয়ও তো উড়িয়ে দেয়া যায় না!

শেষ পর্যন্ত ম্যানচেস্টার টেস্ট কার? জানতে হলে অপেক্ষায় থাকতে হবে শেষ পর্যন্ত।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসঃ ২৬৯/৯ ডি. (১৬২ ওভার), সিবলি ১২০, স্টোকস ১৭৬, বাটলার ৪০, বেস ৩১*

চেজ ১৭২/৫, রোচ ৫৮/২

ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম ইনিংসঃ ২৮৭ (৯৯ ওভার), ব্র‍্যাথওয়েট ৭৫, জোসেফ ৩২, ব্রুকস ৬৮, চেজ ৫১

ওকস ৪২/৩, ব্রড ৬৬/৩, কারেন ৭০/২

ইংল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংসঃ চতুর্থ দিন শেষে ৩৭/২ (১৪ ওভার), ক্রাওলি ১১, স্টোকস ১৬*, রুট ৮*

কেমার রোচ ১৪/২

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক