Connect with us

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ (আইপিএল)

এবারের দল নিয়ে উচ্ছ্বসিত কেকেআর কোচ

প্রকাশিত

তারিখ

শির্ষ্যদের নিয়ে ব্যস্ত ম্যাককালাম। ছবিঃ কেকেআর

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ আইপিএলের চলমান আসরে নিজ দলের পেসারদের নিয়ে উচ্ছ্বসিত কোচ ব্রেন্ডন ম্যাককালাম।

গত বছর পেসার দুর্বলতা নিয়ে বাজে পারফরম্যান্স করেছিলো শাহরুখ খানের মালিকানাধীন দল কলকাতা নাইট রাইডার্স।

পুরো টুর্নামেন্টে পাওয়ার প্লেতে মাত্র ১৬ উইকেট নিতে পেরেছিলো কেকেআরের পেসাররা।

এবার অবশ্য আগের পথে হাটেনি কেকেআর। অস্ট্রেলিয়ান পেস সেনসেশন প্যাট কামিন্সকে দলে নিয়েছে তারা।

তার সাথে রয়েছে শিভাম মাভি, প্রাসিধ কৃষ্ণা, সন্দ্বীপ ওয়ারিয়ার এবং নাগারকোটির মতো সম্ভাবনাময় পেসাররা।

ম্যাককালামের বিশ্বাস তরুণ-অভিজ্ঞতার মিশেলে গড়া এই এই পেস আক্রমণ প্রতিপক্ষকে চমকে দিবে,

‘তাদের অভিজ্ঞতার অভাব রয়েছে কিন্তু খেলার যথেষ্ট সুযোগ দিলে তারাও প্রতিপক্ষকে চমকে দিতে পারে। তারা প্রতিভাসম্পন্ন এবং দলের সাথে ভালোভাবে মানিয়ে নিয়েছে।’

তরুণ এই পেসারদের অনুশীলন দেখে মুগ্ধ কেকেআর কোচ বলেন,‘তাদের অনুশীলন দেখে আমি যারপরনাই মুগ্ধ। তারা অন্যদের থেকে বেশ আলাদা যা বেশ অভাবনীয়। আমাদের লাইনআপে কিছু তারকা খেলোয়াড়ও রয়েছে।’

তাদের উপর ভরসা রেখেই পেসার নির্ভর একাদশ গঠনের ইঙ্গিত দিয়ে ম্যাককালাম বলেন,

‘উইকেটে সবার জন্য চমক অপেক্ষা করছে। বাইরের খেলোয়াড়দের মধ্যে কামিন্স আমাদের দলে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সাথে রয়েছে নাগারকোটি, মাভি, ওয়ারিয়ার এবং প্রাসিধ। কামিন্স ছাড়াও আলী খান, লুকি ফার্গুসন এবং আন্দ্রে রাসেল রয়েছে, যারা ১৪০ কিলোমিটারের বেশি গতিতে বোলিং করে।’

শুধু পেসাররাই নন, নারাইনের মত স্পিনার দলে থাকাটাও বাড়তি শক্তি কেকেআরের জন্য,‘আমরা বেশ ভাগ্যবান যে আমাদের দারুণ কিছু স্পিনার রয়েছে। নারাইনের মত স্পিনার রয়েছে যে সব পিচে ভালো বোলিং করার যোগ্যতা রাখে। আমি আমাদের বোলিং আক্রমণ নিয়ে সন্তুষ্ট।’

বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাটিংয়ে মরগান, টম ব্যান্টন, আন্দ্রে রাসেলরা দলের শক্তি। বিশেষ করে রাসেলকে আলাদা করে প্রশংসায় ভাসালেন সাবেক এই কিউই অধিনায়ক।

‘শেষ চার বছর আমরা যদি তার ক্যারিয়ার দেখি, তাহলে দেখবো সে তার খেলুড়ে বিশ্বাসের মধ্য দিয়ে পুরো দেশকে বদলে দিয়েছে। সে নিজের মত ব্যাটিং করে এবং সে জানে কখন কি করতে হবে। সে বর্তমানে সেরা মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান এবং টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের জন্য আদর্শ।’

‘রাসেলের মত মরগানের ছয় মারার অধিক সক্ষমতা রয়েছে। একইসাথে কার্তিকের মত অভিজ্ঞ নেতৃত্বসম্পন্ন ব্যাটসম্যান দলের মিডল-অর্ডারকে আরও শক্তিশালী করেছে। এছাড়াও টম ব্যান্টন ও সুনীল নারাইনের ব্যাটিং টপঅর্ডারে নির্ভরতা এনেছে।’

সব মিলে ব্যাটে-বলে ম্যাচ জেতার কম্বিনেশন সাজাতে ঘাটতি রাখেনি কলকাতা নাইট রাইডার্স। শেষ পর্যন্ত মাঠের খেলায় সেই বিশ্বাসের কতটা মূল্যায়ন করে দলের খেলোয়াড়েরা সেটাই এখন দেখার বিষয়।

আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের আইপিএল শুরু করবে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক