Connect with us

আন্তর্জাতিক

আগারওয়ালের ডাবল সেঞ্চুরি, রানপাহাড়ে চাপা বাংলাদেশ

মাত্র ১২তম ইনিংসে পূরণ করলেন ২য় ডাবল সেঞ্চুরি, এর চেয়ে কম ইনিংসে একাধিক ডাবল আছে শুধু বিনোদ কাম্বলির।

প্রকাশিত

তারিখ

আগারওয়ালের ডাবল সেঞ্চুরি, রানপাহাড়ে চাপা বাংলাদেশ
ডাবল সেঞ্চুরির পর আগারওয়ালের উদযাপন। ছবিঃ দ্যা ইন্ডিয়ান টাইমস

মাত্রই টেস্টের দ্বিতীয় দিন পার হল। এর ভেতরেই বাংলাদেশকে রান পাহাড়ে চাপা দিয়ে ফেলেছে ভারত। ৬ উইকেটে ৪৯৩ রান তুলে ইন্দোর টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষ করেছে ভারত। প্রথম ইনিংসেই ৩৪৩ রানের লিড পেয়ে গেছে স্বাগতিকেরা।

আজ সবারই ভাবনা ছিল ভারত কত রানে ইনিংস ঘোষণা করে। ভারতের রান তিনশ পার হওয়ার পর সবাই ভেবেছিলেন কোহলির ইনিংস ঘোষণা করা সময়ের ব্যাপার। বাংলাদেশের নিজেদের ইনিংসে সংগ্রহই যে ছোট!

কোহলির মনে কি চলছে তিনিই ভাল বলতে পারবেন। বোঝাই যাচ্ছে, খুব দ্রুত কিছু রান তুলে বাংলাদেশকে রান পাহাড়ে চাপা দিয়ে আবার ব্যাটিংয়ে পাঠাতে।

ম্যাচের এখনো বাকি আরো তিনদিন। ইনিংস জয়ের স্বপ্ন দেখলেও অমূলক কিছু না। এ টেনশনে হয়ত বাংলাদেশ অধিনায়কের ঘুম আজ ভালো হবার কথা নয়।

১ উইকেটে ৮৬ রানে প্রথম দিনের খেলা শেষ করা ভারত আজ ৫ উইকেট হারিয়ে ৪০৭ রান তুলেছে। আগারওয়াল পেয়েছেন তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি। পুজারা-রাহানে-জাদেজার ফিফটির পর উমেশ যাদবের শেষ বিকেলের ঝড়ে ভারতের লিড হয়ে গেছে ৩৪৩ রানের।

নিজেদের ইতিহাসে মাত্র তৃতীয়বারের মতো ৪.৬২ হারে ৪ এর বেশি রানরেটে ৪০০-এর বেশি রান তুলেছে ভারত। শেষ সেশনে ৩০ ওভারে তারা তুলেছে ১৯০ রান।

সকালের সেশনে বাংলাদেশকে ভালো শুরু এনে দিয়েছিলেন আবু জায়েদ। খুব দ্রুতই চেতেশ্বর পুজারা ও বিরাট কোহলিকে ফিরিয়েছেন।

কাল শেষ সেশনে বেশ শক্ত ভিত গড়ে মাঠ ছেড়েছিলেন চেতেশ্বর পুজারা ও মায়াঙ্ক আগারওয়াল। আজ তাঁরা কত দূর যেতে পারেন সেটাই ছিল দেখার বিষয়।

পুজারা ফিফটি তুলে নিলেও তাঁকে বেশিক্ষণ থাকতে দেননি তিনি। স্টাম্পের বাইরে করা বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে স্লিপে মেহেদী হাসানের বদলি হিসেবে মাঠে নামা সাইফ হাসানকে ক্যাচ দেন পুজারা।

এরপর রানের খাতা খোলার আগেই দারুণ এক ডেলিভারিতে ফিরিয়েছেন ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। প্রথমে এলবিডব্লিউর আবেদন নাকচ করে দিয়েছিলেন আম্পায়ার। রিভিউ নিয়ে আবেদন বাংলাদেশের পক্ষে আসে। ফিরে যান কোহলি।

এরপর ইন্দোরে দিনভর শুধু বাংলাদেশের ওপর ভারতের ক্রমাগত আক্রমণের গল্প, আর মুমিনুল-লিটন-তাইজুল-মিরাজদের হতাশা আর অপেক্ষা- একটু যদি ভুল করতেন ব্যাটসম্যানরা!

চতুর্থ উইকেটে ১৯০ রানের জুটি গড়ে ভারতকে রানপাহাড়ে তোলার আয়োজন চূড়ান্ত করেছেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল–অজিঙ্কা রাহানে।

চা বিরতির পরপরই শর্ট বলে আপার কাট করতে গিয়ে ডিপ পয়েন্টে ধরা পড়লেন রাহানে, ৮৬ রানের সুন্দর ইনিংসটার অপমৃত্যু ঘটালেন নিজেই।

আগারওয়ালের তাতে বয়েই গেছে। জাদজার সঙ্গে পরের জুটিতে আগারওয়াল তুললেন আরও ১২৩ রান। আগারওয়াল থামলেন একদম ২৪৩ রানে।

৩৭ রান নিয়ে ব্যাটিং শুরু করা ভারত ওপেনার এদিন করলেন আরও ২০৬ রান। ৩২ রানে তার ক্যাচ ছেড়েছিলেন ইমরুল, সেটির সুদে আসলে তিনি যোগ করলেন আরো ২১১ রান।

মিরাজকে ডাউন দ্য গ্রাউন্ডে এসে লং-অন দিয়ে ছয় মেরে পূর্ণ করলেন দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি, মাত্র ১২তম ইনিংসে! এর চেয়ে কম ইনিংসে একাধিক ডাবল আছে শুধু দ্যা গ্রেট বিনোদ কাম্বলির।

মিরাজকে ছয়ের পর আবার তুলে মারতে গিয়ে আবু জায়েদের ক্যাচ হয়ে থামলেন ২৪৩ রানে।

এটুকুতে শেষ হলেও হত। বোলার যাদবও এদিন হয়ে গেলেন ব্যাটসম্যান। তিনটি ছয়ের সঙ্গে মারলেন একটি চার। যেনো বাংলাদেশের দুরবস্থাকে জানান দিয়ে গেলেন।

হতশ্রী বোলিং, ফিল্ডিং, রক্ষণাত্মক মনোভাব, গেমপ্ল্যানে সমস্যা, বিধ্বস্ত শারীরিক অবস্থার প্রতিচ্ছবি- প্রশ্ন উঠছে নিজেদের সামর্থ্য নিয়ে। বাংলাদেশ বাকি তিনদিনে লড়াই চালিয়ে নিতে পারবে কিনা সেটি সময়ই বলে দিবে।

পুরোটা পড়ুন
কমেন্ট করুন/দেখুন

ট্রেন্ডিং টপিক